Beanibazar View24
Beanibazar View24 is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and It focuses most Beanibazar.

গোপনে দান করলে আরশের নিচে ছায়া পাওয়া যাবে কিয়ামতের দিন !


যে ব্যক্তি গোপনে দান-খয়রাত করে, আল্লাহ তাকে কিয়ামতের দিন সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন। এ ছাড়া আরও ছয় প্রকারের লোককে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাঁর সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন। সর্বাধিক হাদীস বর্ণনাকারী সাহাবি হযরত আবু হুরাইরা (রা:) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, সাত ধরণের লোককে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাঁর সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন।

যে দিন তাঁর ছায়া ব্যতিত আর কোন ছায়াই থাকবেনা। সেই সৌভাগ্যবান ব্যক্তিরা হলেন- ১.ন্যায়বিচারক বা শাসক বা নেতা । ২.মহান আল্লাহর ইবাদতে মশগুল যুবক। ৩.মসজিদের সাথে সম্পৃক্ত হৃদয়ের অধিকারী ব্যক্তি।

৪.যে দুই ব্যক্তি শুধু মাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষে পরস্পর বন্ধুত্ব করে ও ঐক্যবদ্ধ থাকে এবং এজন্যই তারা আবার বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ৫. এমন পুরুষ, যাকে কোন উচ্চ বংশের সুন্দুরী নারী অসৎ কাজের দিকে ডেকেছে; কিন্তু সে জানিয়ে দিয়েছে, আমি আল্লাহকে ভয় করি।

৬. যে ব্যক্তি এত গোপনে দান-খয়রাত করে যে, তার ডান হাত কি করছে বাম হাতও তা জানতে পারেনি এবং ৭. এমন ব্যক্তি যে নির্জনে আল্লাহর যিকির করে এবং দু’ চোখ থেকে পানি ঝরে (ক্রন্দন করে) (বুখারী ও মুসলিম)

প্রসঙ্গত, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব, মানবতার মুক্তির দূত, সাইয়্যেদুল মুরসালিন খাতামুননাবিয়ীন হযরত মুহাম্মদ (সা:)কে আল্লাহ ছোবাহানাহু তায়ালা বিশ্ববাসীর জন্য রহমত স্বরূপ এ পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে বলেছেন- তোমাদের জন্য রাসুলের জীবনীর মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ। তাঁর প্রতিটি কথা, কাজ, অনুমোদন, নির্দেশনা, আদেশ, নিষেধ ও উপদেশ দুনিয়া-আখেরাতের কল্যাণের বার্তাবাহী।

দেশের মোবাইল অপারেটরগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেছেন, করোনাভাইরাসের এ দুর্যোগকালীন সময়ে অন্তত ১৫-২০ দিনের জন্য ফ্রিতে ফোন কল ও ইন্টারনেট এর ব্যবস্থা করুন।

সোমবার (৬ এপ্রিল) বিকেলে ফেসবুক লাইভে এসে করোনার এ দুর্যোগে মোবাইল অপারেটরগুলোর ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। দুর্যোগকালীন এ সময়ে প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেশের সাধারণ মানুষের প্রতি আরও সদয় হওয়ার আহ্বান জানান এ আইনজীবী।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘আমি এমন সময় লাইভে এসেছি, যখন সারা বাংলাদেশের অনেকেই মৃত্যুর মুখোমুখি। কিন্তু একটা কথা বলতে চাই, আমরা সবাই চার দেয়ালে বাসার ভেতরে আছি। সরকার থেকে বলা হচ্ছে, বাড়ির ভেতরে থাকেন। সবাই যে যার জায়গা থেকে চেষ্টা করে যাচ্ছেন, মহাজাগতিক দুর্যোগের মোকাবিলায়। কিন্তু এ ক্রাইসিস মুহূর্তে যারা ব্যবসা চিন্তা করেন, যারা লাভের চিন্তা করে তারা আর যাই হোক বাংলাদেশের মানুষের বন্ধু হতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘ব্যবসা করবেন, এমন জায়গায় যদি আপনারা মানুষের বন্ধুই হতে না পারেন। তাহলে আপনারা কেমন ব্যবসা করবেন। কিসের ভিত্তিতে লাভের টাকা নেবেন। ফোন কোম্পানিগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। দেখেন, গ্রামীণফোন, এয়ারটেল, রবি, আমাদের টেলিটক টেলিটক আছে। এখন কোনো কাজ নেই, কিছু করার নেই। বাচ্চারা ঘ্যান ঘ্যান করলে আমরা ইন্টারনেট ছেড়ে দেই, আমরা একটা কার্টুন দেখাতে চাই। নিজেরা সবসময় অনলাইনে থাকতে চাই। দেশের খবর নিতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘অনেকের কাছে টিভি পৌঁছায় না, ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়া যেভাবে পৌঁছায়। আমরা এখন পুরাটাই মোবাইলভিত্তিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী হয়ে গেছি। এই সময় কী আপনারা যারা ফোন কোম্পানি আছে, তারা কি একটু ফ্রি করে দিতে পারেন না আমাদেরকে। আপনারা যারা এই সময়ে কল রেট, এমবিটা ফ্রি করে দিতে পারেন না।’

সুমন বলেন, ‘এই ১৫-২০ দিন আপদকালীন এই সময়েও যদি আপনারা মানুষের পাশে না দাঁড়ান। বিশেষ করে গ্রামীণফোনের কথা বলি, আপনাদের কাছে সরকার ১২ হাজার কোটি টাকা পায়। মাত্র এক হাজার কোটি টাকা দিতে কত নাটক করেছেন। এখন কী আপনারা কাজটা করতে পারেন না এই দুঃসময়ে, মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারেন না।’

তিনি গ্রামীণের প্রতি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘এই কোম্পানি তো নোবেল পাওয়া গ্রামীণ ব্যাংকেরই সাবসিডিয়ারি। আপনারা কী পারেন না এই কাজটি করতে। আপনারাতো চ্যারিটি টাকা দিয়েই কোম্পানি গঠন করছেন। চ্যারিটি টাকা নিয়ে যারা বড় বড় কোম্পানি করেছেন। তারা কি চ্যারিটির মূল্যায়নটা বোঝেন না? যারা চ্যারিটি চালান তারা কি এটা বোঝেন না?’

এ আইনজীবী বলেন, ‘যাদের ফোন কোম্পানি আছে, আমি তাদের অনুরোধ করব, সরকারকে অনুরোধ করব ট্যাক্স কমিয়ে দিতে। আমাদের তো আনন্দ করা ও বেঁচে থাকার আর কোনো সিস্টেম নেই। বিদেশে যখন এক বেডরুমে একজন থাকেন, আমাদের সেখানে তিনজনকে একটি বেডরুম শেয়ার করতে করে থাকতে হয়।

আমরা সারাক্ষণ মৃত্যুর ভয়ে নিয়ে বেঁচে আছি। মোবাইলেও রিচার্জ করা যাচ্ছে না সব দোকানপাট বন্ধ। বিকাশের দোকান খুললে আপনারা পুলিশ দিয়ে পেটাচ্ছেন। এই মুহূর্তে মানুষ ফোনে টাকা ঢুকাবে কী করে?’

তিনি বলেন, ‘টাকা থাকলেও এই মুহূর্তে একজন ভদ্রলোক বা ভদ্রমহিলা টাকা ঢুকাতে পারছে না। এই সময়টা অন্তত আল্লাহর ওয়াস্তে আমাদের মাফ করবেন। আপনারা তো আমাদের থেকে অনেক ভালো জানেন, ব্যবসা কীভাবে করা লাগে। ম্যাসেজ দিয়ে আপনারা তো কত দিক থেকে টাকা কেটে নেন। এটার সব বিচার তো আপনাদের বিরুদ্ধে আমরা দিতে পারছি না। পৃথিবীতে আপনাদের চেয়ে ভালো ব্যবসা তো আর কেউ জানে না।’

সুমন বলেন, ‘ব্যবসা করবেন অন্তত আপদকালীন সময়ে, ব্যবসা কম করেন। আপদকালীন সময় অন্তত কল রেটটা ফ্রি করে দেন। লম্বা কথার জন্য ফ্রি করা দরকার নেই। কমপক্ষে এক দুই মিনিট হলেও তো ফ্রি করে দিতে পারেন। আমার বিশ্বাস সরকারকে বললে এই মুহূর্তে সহযোগিতা করবেন।’

গ্রামীণফোনকে উদ্দেশ্য করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘বিটিআরসির ১২ হাজার পাওনা টাকা নিয়ে যে নাটক করেছেন, সরকারকে টাকা না দেয়ার জন্য। ১১ হাজার কোটি টাকা এখনও তো দেন নাই। অন্তত কিছু সময় মানুষের কাজে আসেন। যেকোনো সময়ে মানুষ আপনাদের এই কোম্পানির পক্ষে দাঁড়াবে। নইলে কোম্পানির ব্যাপারে বাঙালি ও বাংলাদেশের মানুষের ধারণা ভালো না। এরকম কোম্পানি হতে যাবেন না।’

তিনি বলেন, ‘আমি আমার ভিডিও থেকে বিদায় নেয়ার আগে আবারও বলছি, সরকারের মন্ত্রণালয়ে যারা আছেন তাদেরকেও বলছি এবং ফোন কোম্পানিগুলোকেও বলছি, আপনাদের বদনাম করার উদ্দেশে এখানে আসিনি।

লাইভে আসছি শুধু একটি কথা বলতে, এই করোনার মুহূর্তে দেশের মানুষের দুর্যোগের মোমেন্টে। সারা পৃথিবীর সরকার যখন এরকম সাবসিডিয়ারি দিচ্ছে আমরা তো এমনিতে ঘনবসতিপূর্ণ আমাদের মরার সম্ভাবনাও বেশি। অন্তত মোবাইলটা দিয়ে খোঁজ খবর নেয়ার সুযোগ টা করে দেন। এতো বে-রহম আমাদের ওপর কইরেন না।

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.