বিয়ানীবাজার

বিয়ানীবাজার পৌরশহরে প্রায় এক বছর পর ফিরে এসেছে মাছ বাজার







প্রায় এক বছরের চেয়ে কম সময়ের মধ্যে মাছ ব্যবসায়ীরা বিয়ানীবাজার পৌরশহরে ফিরে এসেছেন। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়রের সাথে আলোচনার মাধ্যমে মাছ ব্যবসায়ীরা পৌরশহরে আসতে সম্মত হন।আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার পর থেকে তারা মাছ বিক্রি শুরু করবেন।

মাছ ব্যবসায়ীরা ফিরলেও তারা পৌর কিচেন মার্কেটে উঠছেন না। পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর মোরগগলির পূর্বপাশের ব্যক্তি মালিকাধীন যে জায়গা ভাড়া নিয়েছেন সেখানেই বসছেন ব্যবসায়ীরা। প্রথম দিন ৫০ জনের বেশি ব্যবসায়ী মাছ নিয়ে পসরা সাজাবেন বলে জানা গেছে।



সরেজমিনে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় মোরগগলিতে গিয়ে দেখা যায়, একদল শ্রমিক ব্যবসায়ীদের জন্য অস্থায়ীভাবে টিনের চালা তৈরী করছেন। আপাতত জায়গাটির পরিসর ছোট হলেও একই স্থানে সবজি ব্যবসায়ীদেরও নিয়ে আসা হবে। দক্ষিণ পাশের খোলা জায়গা ও পশ্চিম পাশের আধাপাকা ঘরটি ভেঙ্গে ব্যবসায়ীদের জন্য প্রস্তুত করে দেয়া হবে। অস্থায়ী ঘর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর।



মাঝ ব্যবসায়ী আবুল কালাম বলেন, এ বাজারে ব্যবসা করা অধিকাংশ ব্যবসায়ী এখানে চলে এসেছেন। যারা অন্যত্র রয়েছেন আমাদের বিশ্বাস তারাও চলে আসবেন। ব্যবসায়ী মঈন উদ্দিন বলেন, প্রথম দিকে ৬০টির মতো চৌকি নিয়ে আমরা শুরু করছি। কয়েকদিনের মধ্যে সেটি আরো বৃদ্ধি পাবে। সকলের সহযোগিতা কামনা করে আগতদার ঈমাম উদ্দিন বলেন, পৌর মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যানের আমাদের সুন্দর পরিবেশে আলোচনা হয়েছে।



আমাদের সব রকম সুযোগ সুবিধা তারা নিশ্চিত করেছেন। আমাদের দাবির অধিকাংশপুরণ করার আশ্বাস দিয়েছেন। এ প্রক্রিয়া শুরুও হয়েছে। যার কারণে আমরা ফের পৌর শহরের ফিরে এসেছি।

পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর বলেন, যে দুরত্ব তৈরী হয়েছিল সেটি ভুলবোঝাবুঝির ফল। একটি পক্ষ আমাদের সাথে মাছ ব্যবসায়ীদের দুরত্ব তৈরী করে রেখেছিল। এটি আমরা সবাই বুঝতে পেরেছি। তিনি বলেন, আমি সব সময় ব্যবসায়ীদের বলে এসেছি- সব রকম সুযোগ সুবিধা পৌরসভা দেবে।



এতে কোন ব্যত্তয় ঘটবে না। আমাদের প্রয়োজনে ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে আমরা প্রস্তুত। তিনি সকল পর্যায়ের ব্যবসায়ী, উপজেলা ও পৌরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন। মাছ ব্যবসায়ীরা ফিরে এসেছেন আমরা তাদের সুন্দর পরিবেশে বরণে প্রস্তুতি নিচ্ছি।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব বলেন, পনের পূর্বে আমাদের সাথে আলোচনা করে মাছ ব্যবসায়ীরা কথা দিয়েছিলেন তারা উপযুক্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। দীর্ঘদিনের আলোচনা শেষে ব্যবসায়ীরা আমাদের আশ্বস্থ করেছেন তারা যদি সুযোগ সুবিধা পান এবং তাদের দাবিগুলো বাস্তবায়ন হয় তাহলে তারা আসবেন।



পৌর মেয়রসহ আমরা তাদের আশ্বস্থ করেছি সব সুযোগ সুবিধা আমরা তাদের দিতে পারবো। তিনি বলেন, বুধবার মাছ ব্যবসায়ী, পৌর মেয়রসহ একটি বৈঠক হয়েছে। এ বৈঠকের পরেই আজ থেকে মাছ বিয়ানীবাজার পৌরশহরে বিক্রি করবেন বলে ব্যবসায়ীরা আমাদের জানিয়েছেন। আমরা তাদের এ সিদ্ধান্তে ধন্যবাদ জানিয়েছি।
সূত্রঃ বিয়ানীবাজার নিউজ ২৪।











Related Articles

Close