বিনোদন

প্রযোজকের চাপে যৌ’ন পেশায় গিয়েছিলেন যে অভিনেত্রী, অতঃপর করুণ মৃ’ত্যু







ভারতের দক্ষিণী চলচ্চিত্রের একসময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নিসা নূর। হয়তো বর্তমান প্রজন্মের আনুশকা শেঠী বা তামান্না ভাতিয়ার মত জনপ্রিয় দক্ষিণী অভিনেত্রী নন তিনি। কিন্তু আশির দশকে ‘কল্যানা আগাথিগাল’, ‘লায়ার দ্য গ্রেট’, ‘টিক! টিক! টিক!’-এর মতো প্রচুর হিট ফিল্মে অভিনয় করেছেন তিনি। বালাচন্দন, বিষু, চন্দ্রশেখরের মতো এককালের নামকরা পরিচালকের চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি।



জানা যায়, তার রুপে মুগ্ধ হয়ে রজনীকান্ত, কামাল হোসেনের মোট অভিনেতারাও তার সঙ্গে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু এমন একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী জীবনের শেষটা কাটিয়েছেন রাস্তায় রাস্তায়। শেষ বেলায় ভালোমত খেতেও পারতেন না তিনি। কি হয়েছিলে একসময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী এই নিসা নূরের জীবনে?

শোনা যায়, সে সময় নাকি এক নাম করা প্রডিউসারের খপ্প’রে পড়ে গিয়েছিলেন নিসা নুর। ওই প্রডিউসার তার সঙ্গে প্র’তারণা করেছিলেন। তাকে যৌ’ন পেশায় নামতে বাধ্য করেছিলেন।



এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ইন্ডাস্ট্রি তার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল। কেউই তার সঙ্গে কাজ করতে চাইছিলেন না। বাধ্য হয়েই ইন্ডাস্ট্রি থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন নিসা নুর। কাজ হারিয়ে ক্রমে আর্থিক দুরাবস্থার মধ্যে পড়েন তিনি। দিনের পর দিন খেতে পেতেন না। সে সময় তার পাশে দাঁড়ানোরও কেউ ছিল না।

অনেক বছর পর ২০০৭ সালে চেন্নাইয়ের একটি দরগার বাইরে রাস্তায় তাকে পড়ে থাকতে দেখা যায়।



ক’ঙ্কালসার চেহারা, মলিন পোশাক, গায়ে পোকা, মাছি ঘুরে বেড়াচ্ছিল। তিনি এতটাই শীর্ণ ছিলেন যে মাছি তাড়ানোরও শক্তি ছিল না শরীরে। দেখে বোঝার কোনও উপায়ই ছিল না যে তিনিই সেই নিসা নুর।

তাকে চিনতে পেরে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। সেখানে চিকিৎসায় ধরা পড়ে তিনি এ’ইচ’আই’ভি আ’ক্রান্ত। ২০০৭ সালের ২৩ এপ্রিল মাত্র ৪৪ বছর বয়সে এ’ইড’স-এ তার মৃ’ত্যু হয়।














Related Articles

Close