সিলেটস্বাস্থ্যকথা

সিলেটে হচ্ছে ক্যান্সারের ‘শেষ’ চিকিৎসা কেন্দ্র







ক্যান্সার।এটি একটি মারাত্মক ব্যাধি। এই রোগের নাম শুনলে মানুষ আঁতকে উঠেন।ক্যান্সার মানেই মৃত্যু প্রায় নিশ্চিত। এই রোগের চিকিৎসা অতন্ত্য ব্যয়বহুল। ক্যান্সার রোগটি এখন মানব সমাজে খুবই পরিচিত। বাংলাদেশের ৪টি হাসপাতালে এই রোগের চিকিৎসা দেয়া হয় পুরোপুরি। এই চার হাসপাতালের মধ্যে আছে সিলেটের নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

বেসরকারি এই হাসপাতালে ক্যান্সার বিভাগকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে আগের চেয়ে অনেক বেশি। যাতে করে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীরা সিলেটেই চিকিৎসা পান। নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাধারন চিকিৎসার পাশাপাশি একটি ‘আধুনিক ক্যান্সার হাসপাতাল’এ পরিণত করতে প্রাথমিকভাবে কাজ শুরু হয়েছে।

এজন্য আগামী বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্য থেকে একজন ও ঢাকা থেকে ৪ জন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ আসছেন হাসপাতালে। মঙ্গলবার দুপুরে এ তথ্য জানিয়েছেন হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, অধ্যাপক ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের বিশিষ্ট ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ বাংলাদেশী বংশোদ্ভোত ডা. আমিন ইসলাম, ঢাকার ডা. তাইমুর হুসেইন, অধ্যাপক ডা. মমতাজ বেগম, ডা. কামরুল ইসলাম এবং ডা. সাবিনা করিম প্রাথমিক মূল্যায়নের জন্য তাঁরা ক্যান্সার হাসপাতাল পরিদর্শনে আসছেন বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, অধ্যাপক ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, নর্থ ইষ্ট হাসাপাতালে শুধু ক্যান্সার নয়, একটি সম্পূর্ণ ‘হেলথ সিটি’ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। যেখানে চিকিৎসার সকল ধরনের ব্যবস্থা থাকবে।সব কিছু থাকবে আধুনিকায়ন পদ্ধতির। সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার চন্ডিপুল এলাকায় নিজস্ব জায়গায় গড়ে তোলা হয়েছে হাসপাতালের অনেকগুলো ভবন। রয়েছে মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল, ডেন্টাল ইউনিট। এছাড়া রয়েছে ক্যান্সার হাসাপাতাল, নার্সিং কলেজ ও হেলথ টেকনোলজি।

হেলথ সিটি গড়ে তোলার জন্য আন্ডার গ্রেজুয়েশনের স্বাস্থ্য বিষয়ক সব ব্যবস্থা করা হয়েছে ইতিমধ্যে। মেডিকেল কলেজ থেকে এই পর্যন্ত ১১৬৬ জন এমবিবিএস ডাক্তার পাস করেছেন। যাদের বড় একটি অংশ রয়েছেন নেপাল ও ভারতের। ডা. শাহরিয়ার বলেন, এটা শুধু কলেজের সুনাম হচ্ছেনা। বাংলাদেশের সুনাম বয়ে আনছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ প্রতি বছর বড় ধরণের একটি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে।

এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য বিদেশে যাচ্ছে, সেখানে এই মেডিকেল কলেজের বড় একটি অংশ দেশের বাহিরের শিক্ষার্থী হওয়ায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের বিদেশমুখীতা কমবে বলে মনে করেন হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তিনি আরো জানান, বিদেশি শিক্ষার্থীরা এখান থেকে পাস করে নিজ নিজ দেশে গিয়ে লাইসেন্সের জন্য পরীক্ষা দিতে হয়। তাদের সকল ডাক্তাররা নিজ দেশে গিয়ে পরীক্ষায় সুনামের সাথে পাস করেছে। যা অত্যন্ত প্রশংসার দাবী রাখে।

বর্তমানে এই হাসপাতালে ক্যান্সার রোগীদের ৪ ধরনের চিকিৎসা দেয়া হয়। এর মধ্যে ক্যান্সার ডায়াগনোসিস, ক্যামো থেরাপী, ক্যান্সার সার্জারি ও রেডিও থেরাপি রয়েছে। চিকিৎসার শেষ সময়ে যেটাকে বলে টার্মিনেল কেয়ার(অন্তিম মুহূর্ত)বর্তমানে বাংলাদেশে সেটা অনুপস্থিত।এটা পূরণের লক্ষেই নর্থ ইস্ট মেডিকেল হাসপাতাল কাজ শুরু করছে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. শাহরিয়ার জানান, সিলেট থেকে যাতে কোন রোগী চিকিৎসার জন্য অন্য কোথায় যেতে না হয় সে লক্ষেই তারা এগিয়ে চলছেন। দেশের অন্যান্য জায়গা থেকে সিলেটে এসে উন্নতমানের চিকিৎসা সেবা গ্রহণের আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। এছাড়া ভারতের সেভেন সিস্টার থেকেও রোগীরা নর্থ ইস্ট হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা পাবে কম খরচে সেদিক খেয়াল রেখে বিভিন্ন পরিকল্পনা তাঁরা হাতে নিয়েছেন।

জানা গেছে, বর্তমানে ২৩টি বিভাগে চিকিৎসাসেবা চলছে পুরোদমে। ৮০০ বেডের এই হাসপাতাল ১ হাজার বেডে উন্নীত করা হচ্ছে। হাসপাতালকে সম্পূর্ণরূপে ‘হেলথ সিটি’ গড়ে তোলার পর চিকিৎসা ব্যবস্থা এগিয়ে যাবে বহুদূর, এমন আশা ব্যক্ত করছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছেন, সেখানে পাওয়া যাবে চিকিৎসা সংক্রান্ত সকল ধরণের সুবিধা।
সূত্রঃ সিলেটভিউ২৪ডটকম

Related Articles

Close