ধর্ম

১৫০ বছরের পুরনো মসজিদটিই ছিল ইসলাম প্রচারের হাতিয়ার

চারপাশে গাছ দিয়ে ঘেরা ছোট্ট একটি তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। বাংলা ১২৭৬ সালে মসজিদটি নির্মিত হয়। ময়মনসিংহ জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলায় মসজিদটির অবস্থান। বিশিষ্ট দানবীর তালুকদার বংশের প্রতিষ্ঠাতা হাজী ফাজেল মাহমুদ তালুকদার এই মসজিদটি নির্মাণ করেন তারই বাড়িতে।
জানা গেছে, তখনকার সময় এই মসজিদটি উক্ত এলাকায় ইসলাম প্রচার ও প্রসারে বড় ভূমিকা রাখে। মসজিদটির নির্মাণশৈলী ইসলামী স্থাপত্যকলায় ভরপুর। নানা ধরনের চিত্রে ভরা এর ছাদ, দরজা ও দেয়াল। তিন গম্বুজের পাশাপাশি মসজিদের চার কোণে চারটি সুদৃশ্য মিনার রয়েছে। সেই সময়কার চুন সুরকির গাঁথুনির জন্য ময়মনসিংহের আকুয়া থেকে সুদক্ষ রাজমিস্ত্রি নিয়ে আসা হয়েছিল এর নির্মাণকাজে।

এছাড়াও গম্বুজের কারুকাজ করার জন্য চীন থেকে সিরামিকের টুকরা নিয়ে আসা হয়। গম্বুজের চূড়ায় বসানো হয় পিতলের কলসী। মসজিদের কার্ণিশগুলোতে বর্ণিল স্থাপত্যকলার নিদর্শন রয়েছে। এর দরজায় রয়েছে বর্ণিল চিত্রকলা। সবই আরবি হরফে লেখা। জানালায় রয়েছে কারুকাজময় চিত্র। কয়েকবার সংস্কারের ফলে আগের সৌন্দর্য্য অনেকটাই ঢাকা পড়েছে।

নির্মাণের পর ১৩০৪ সালে ভয়াবহ ভূমিকম্পে মসজিদটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যদিও ওই বছরই পুনরায় তা সংস্কার করা হয়। এতে তখনকার সময়ই ব্যয় হয় আট হাজার রোপ্য মুদ্রা। ঐতিহাসিক এই মসজিদটি বর্তমানে বয়সের ভারে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। যে কোনো মুহূর্তে এটি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। প্রাচীন এই মসজিদটি প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সংরক্ষণের দাবি জানিয়ে আসছেন তালুকদার পরিবারসহ এলাকাবাসী।

Related Articles

Close