সারাদেশ

ভালোবেসে করুণ পরিণতি







গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের বেগুন ক্ষেতের পাশ থেকে জান্নাতুল আক্তার (১৮) নামের এক গৃহবধূর গলা ও হাত-পায়ের রগ কাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত গৃহবধূ জান্নাত ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের আবুল হোসেনের মেয়ে। এক বছর আগে শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে আল-আমিনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিয়ে হয় তার। আল-আমিন তার স্ত্রী জান্নাতকে নিয়ে ভালুকার স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থেকে স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন।



নিহতের ভাই রোমান জানান, দুই বছর আগে তার বোন জান্নাতকে পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে দিয়েছিলেন। সেখানে কিছুদিন সংসার করার পর আল-আমিনের প্রেমে পড়েন জান্নাত। পরে প্রথম স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে আল-আমিনকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর আল-আমিন জান্নাতকে নিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে চাকরি করতেন।

গত রোববার (৩০ ডিসেম্বর) নির্বাচনের ছুটিতে জান্নাত তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। সেখান থেকে পরের দিন (সোমবার) জান্নাত তার স্বামী আল-আমিনের সঙ্গে ভাড়া বাড়িতে চলে যান। এরপরে মুঠোফোন বন্ধ থাকার কারণে তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।



রোববার সকালে উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের যোগিরছিট এলাকার কৃষক মোস্তফা বেগুন ক্ষেতে পানি দিতে গিয়ে জান্নাতের মরদেহ দেখেতে পায়। পরে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত জান্নাতের ভাই রোমান বলেন, যেহেতু স্বামীর সঙ্গে জান্নাত বের হয়েছিল আমার ধারণা, স্বামী আল-আমিনই তাকে হত্যা করেছে। তাদের মধ্যে কোনো কলহ ছিল কিনা তা আমার জানা নেই। তবে আল-আমিনকে ভালোবাসে আজ জান্নাতের করুণ পরিণতি হলো।



শ্রীপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শহিদুল হক মোল্লা বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে নিহত গৃহবধূর বাড়ির পাশ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার গলা ও পায়ের রগ কাটা ছিল। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় পর নিহতের স্বামী গা ঢাকা দিয়েছে। প্রকৃত ঘটনা জানতে তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।











Related Articles

Close