সিলেট

সিলেটের অনন্যাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন







অনন্যা দে। সারাক্ষণ হাসিমাখা মুখে সহপাঠীদের মাতিয়ে রাখা একটি নাম। এসব কারণে অনন্যা দে আঁখি নামের মেয়েটি সহপাঠীসহ শিক্ষকদের কাছেও প্রিয় একটি মুখ। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। তাঁর সহপাঠীরা যখন এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে ব্যস্ত রয়েছে লেখাপড়া নিয়ে। ঠিক তখনই জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা অনন্যা ঢাকাস্থ অ্যাপোলো হাসপাতালে রয়েছেন লাইফ সাপোর্টে।



সিলেট শহরের এমসি কলেজ থেকে ২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থী অনন্যা দে। গত ২৪ জানুয়ারি কলেজে আসার সময় সিলেট বিমানবন্দর এলাকায় সড়কে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। এতে তার মাথাসহ শরীরের অনেক অংশ মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। প্রথমে তাকে সিলেট ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে অনন্যাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা এ্যাপোলো হাসপাতালে নেয়া হয়। ইতোমধ্যেই ডাক্তাররা তার ব্রেইনে অপারেশনও করেছেন।

অনন্যা মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার হাটবন্দ এলাকার অরুণ কান্তি দে ও অপর্ণা রানী দের একমাত্র মেয়ে। বড়লেখা পৌর শহরের রোকেয়া খাতুন লাইসিয়াম স্কুল থেকে পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীতে বৃত্তি এবং এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছিল অনন্যা। ছিলেন নজরুল একাডেমির একজন শিল্পী।



চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, অনন্যাকে সম্পূর্ণ সুস্থ করতে চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য প্রাথমিকভাবে অন্তত ৩০ লাখ টাকার প্রয়োজন। গুরুত্বপূর্ণ আরো কয়েকটি অপারেশন করাতে হবে। কিন্তু কোথায় মিলবে এত টাকা? অনন্যার মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে এই ব্যয় বহন করা বিশাল চাপই নয়, এত টাকা জোগাড় করা অসম্ভব ব্যাপার। পরিবারের মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়েছে। চোখ বুজলেই যেন দু:স্বপ্ন ঘিরে ধরছে অনন্যার বাবা অরুণ চন্দ্র দেকে। চিকিৎসার টাকা জোগাড় করার জন্য তিনি এখন দিশেহারা।



এদিকে মেয়ের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে সহায়তা চেয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে অরুণ কান্তি দে বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) দুপুরে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তিনি সহায়তা করলে আমার মেয়েটি সুস্থ হয়ে উঠবে। সে এখন লাইফ সাপোর্টে আছে। মেয়ের মাথা ও পাসহ শরীরের কয়েকটি স্থানে অপারেশন লাগবে। ডাক্তার বলেছেন প্রাথমিকভাবে ৩০ লাখ টাকা লাগতে পারে। এতো টাকা আমার পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব নয়।’

পিতার পাশাপাশি অনন্যা দে আঁখির চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেছে সিলেটে অবস্থানরত বড়লেখা উপজেলার শিক্ষার্থীদের সংগঠন বড়লেখা ছাত্রকল্যাণ সংঘ সিলেট।



বড়লেখার রোকেয়া খাতুন লাইসিয়াম স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও নজরুল একাডেমির উপদেষ্টা মসরুর আলম চৌধুরী বলেন, “অনন্যা খুব শান্ত ও মেধাবী মেয়ে। তাকে সুস্থ করতে অনেক টাকার দরকার। সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।”

অনন্যা দে আঁখিকে সহায়তার জন্য, হিসাবের নাম : অমিতাভ দে, ডাচ-বাংলা-ব্যাংক লিমিটেড সিলেট শাখা, হিসাব নম্বর-১৩২১০১৫৪২১৪, ভাইয়ের (বিকাশ) নম্বর ০১৭৩৪-৫৩০৯১০।

সকলের আর্থিক সহায়তায় হাসিমাখা মুখটি আবারও স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে, এমনটাই তার পরিবার ও শুভানুধ্যায়ীদের আশা।














Related Articles

Close