অপরাধ চিত্রসারাদেশ

প্রথমে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ, পরে গৃহবধূকে এসিড নিক্ষেপ; সেই কাজল বন্দুকযুদ্ধে নিহত







মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ধলা গ্রামে গৃহবধুর মুখে এসিড নিক্ষেপ কারী ও ধর্ষণ মামলার আসামি ইয়াকুব আলী কাজল পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। এসময় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

আহত পুলিশ সদস্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে কর্মে ফিরেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি ওয়ান শুটারগান, গুলি ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে। নিহত কাজল গাড়াডোব গ্রামের জালাল উদ্দিন হাবুর ছেলে।



নিহত কাজলের নামে গাংনী থানায় স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ পূর্বক গণধর্ষণ ও এক গৃহবধুকে এসিড নিক্ষেপ মামলার পলাতক আসামী ছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত দুই টার দিকে গাংনীর গাড়াডোব-আমঝুপি সড়কের একটি বাঁশবাগানে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।



গাংনী থানার তদন্ত ওসি সাজেদুল ইসলাম জানান, ধর্ষণ মামলার আসামি কাজল দির্ঘদিন ধরে একই উপজেলার ধলা গ্রামে পলাতক ছিল। সেখানে একটি মেয়ের উপর তার কু-নজর পড়ে। মেয়েটি তার কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বুধবার বিকালে মেয়েটির মুখে এসিড নিক্ষেপ করে। স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।



পুলিশ শুক্রবার দিবাগত রাত দেড় টার দিকে তার স্বীকারোক্তী মোতাবেক অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারে গেলে গাড়াডোব গ্রামের একটি বাঁশবাগানের কাছে পৌছালে সন্ত্রাসীদের একটি দল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে। পুলিশ পাল্টা গুলি করলে উভয় পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এতে কাজল নিহত হয়।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করেছে। পরে তাকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্র নাথ সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ ও গৃহবধুকে এসিড নিক্ষেপ মামলার আসামী ইয়াকুব আলী কাজলকে বৃহস্পতিবার রাতে গাংনী উপজেলার ধলা গ্রাম থেকে আটক করা হয়। কাজলের বিরুদ্ধে গাংনী থানায় একটি ধর্ষন মামলা রয়েছে।














Related Articles

Close