অপরাধ চিত্রসারাদেশ

তাবলীগের দুই গ্রুপের সংঘাতে আগুনে পোড়ানো সেই রাজনের মৃত্যু!







কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে তাবলীগ জামাতের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের জেরে সা’দপন্থী তবলিগ জামাতের এক সক্রিয় সাথী আবদুর রহিম রাজন(২৭) ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে ২২ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। সোমবার রাজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

নিহত আব্দুর রহিম রাজন পৌর সদরের পূর্বপাড়া মহল্লার প্রবাসী মস্তোফা মিয়ার ছেলে। এবং মাওলানা সাদ পন্থী তাবলীগ জামাতের সমর্থক। সোমবার পুলিশ বনগ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব ও কাউছার নামে জোবায়েরপন্থী দুইজনকে আটক করেন।



জানা গেছে, তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের সংঘাতের জের ধরে গত ১৯ মে রাত ১১টার দিকে কতিপয় দুর্বৃত্ত কটিয়াদী থানার সন্নিকটে সাব-রেজিস্ট্রারের কার্যালয় সংলগ্ন রাস্তায় রাজনের গায়ে তরল দাহ্য পদার্থ ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়।

স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর রাতেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।



এ ঘটনায় রাজনের মামা মামুনুর রশিদ নয়ন বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখসহ ৪-৫ জন অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে কটিয়াদী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী মামুনুর রশিদ নয়ন বলেন, এই সভ্য সমাজে যারা রাজনকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে তারা জঙ্গী। বিষয়টি প্রশাসনের অধিক গুরুত্বসহকারে দেখা উচিত। তবে একটি মহল ঘটনাটিকে ভিন্ন ধারায় নেয়ার চেষ্টা করছে। আমি প্রকৃত অপরাধীদের শাস্তি দাবী করছি। রাজনের লাশ ময়না তদন্ত শেষে রাতে বাড়িতে আনা হবে। এর আগে ঢাকায় কাকরাইল মসজিদে একটি জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। আজ মঙ্গলবার জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যোবায়েরপন্থী তাবলীগ জামাতের সদস্যরা জানান, ঘটনাটি অন্য কোন বিষয়কে কেন্দ্র করে হতে পারে। তবে প্রকৃত অপরাধীদের বিচার দাবী করছি।














Related Articles

Close