কানাইঘাটে মসজিদের ইমাম নিয়ে সংঘর্ষ : নিহত ১, আহত ১০

0

বিয়ানীবাজার ভিউ২৪ ডটকম, ১১ মে ২০১৮,

কানাইঘাটে মসজিদের ইমাম নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। গতকাল শুক্রবার উপজেলার সদর ইউপির গোসাইনপুর গ্রামে জুমআ’র নামাজের পর দু’পক্ষের সংঘর্ষে একই গ্রামের মৃত জোয়াদ আলীর পুত্র মোহাম্মদ আলী (৬০) নিহত হয়েছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গোসাইনপুর বড় মসজিদের ইমাম ও পবিত্র রমজান মাসে হাফেজ নিয়োগ নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে দ্বন্দ্ব চলে আসছে।

এই দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে গতকাল মসজিদ কমিটির দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ গং এবং সদস্য আব্দুন নুর ও রফিকুল হক গংরা জুমআ’র নামাজের পর কথা কাটাকাটির একপর্যায় উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে এবং ব্যাপক ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষের একপর্যায়ে মোহাম্মদ আলী (৬০) গুরুতর আহত হলে স্থানীয় লোকজন তাকে দ্রুত কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। উভয় পক্ষের ইটপাটকেলের আঘাতে আব্দুল্লাহ গংদের মধ্যে মৃত আব্দুল খালিকের পুত্র হাবিবুর রহমান, মখদ্দুছ আলীর পুত্র আব্দুল মালিক, তাহির আলীর পুত্র আহসান উল্লাহ, তফজ্জুল আলীর পুত্র সামছুল হক, আব্দুল্লাহ মিয়ার পুত্র আব্দুল কাদির ও প্রতি পক্ষের আরজদ আলীর পুত্র ফয়ছল আহমদ, মঈন উদ্দিনের পুত্র আশরাফ উদ্দিন ও মুরব্বী আফতাব উদ্দিন আহত হয়েছেন। খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং ঘটনাস্থল থেকে মাষ্টার বশির আহমদ, মৌলভী জামাল উদ্দিন ও ইয়াহিয়া মাসুমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

এব্যাপারে মসজিদ কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন গোসাইনপুর গ্রামটি জামায়াত অধ্যুসিত হওয়ায় এখানে শিবিরের নেতাকর্মীরা ইমাম নিয়ে প্রতি বৎসর একটি দন্দ্ব সৃষ্টি করে। এরই ধারাবারিকতায় এ বছরও তারা গ্রামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দাবী করেন তিনি। তবে তাদের প্রতিপক্ষ আব্দুন নুর গংরা এসব অভিযোগ উড়িয়ে বলেন দীর্ঘদিন থেকে মসজিদের ইমাম নিয়ে এলাকায় বিতর্ক রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উভয় পক্ষ থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। নিহত মোহাম্মদ আলীর সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালে প্রেরন করেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ জানান, ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে এবং ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্যদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Share.

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.