সিলেটে প্রতিবন্ধী পণ্য মেলার প্রস্তুতি পুরোদমে এগিয়ে চলেছে

0

বিয়ানীবাজার ভিউ২৪ ডটকম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮,

সমাজের অনেক সুবিধা বঞ্চিত প্রতিবন্ধীদের সাহায্যার্থে একটি মহতি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কল্যাণ সোসাইটি। দৃষ্টি প্রতিবন্ধীসহ অন্যান্য প্রতিবন্ধীদের মুখে হাসি ফোটাতে ব্যতিক্রমী এই আয়োজনে সকল মহলের সহযোগিতা ও পরামর্শ কামনা করেছেন আয়োজকরা।
সিলেট শহরতলীর জালালাবাদ সেনানিবাসের সামনের পাবলিক মাঠে মাস ব্যাপী আয়োজিত এই মেলায় থাকবে দেশী-বিদেশী নানাবিধ পণ্যের সমাহার। বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকবে প্রতিবন্ধীদের শৈল্পীক সৃষ্টির নানা প্রকার পণ্য সামগ্রী। মেলা আয়োজনের প্রস্তুতি পুরোদমে এগিয়ে চলছে। এখন চলছে মেলায় স্টল, তোরণ নির্মানসহ অন্যান্য সাজ-সজ্জার কাজ।
মেলা আয়োজনকে ঘিরে শাহপরাণ (রহ.) থানাধীন বটেশ্বর এলাকায় মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে উৎসাহ উদ্দীপনা। বিনোদন বঞ্চিত মানুষ তাদের দোরগোড়ায় আনন্দ বিনোদনের একটি ক্ষেত্র তৈরী হওয়ায় বেশ উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন। সরকারের যথাযথ অনুমতি নিয়ে সম্পুর্ন বৈধ ভাবে এই মেলার আয়োজন করা হবে বলে জানালেন আয়োজকরা।
এই মেলা থেকে সিলেটের প্রদিবন্ধীরা কিছুটা হলেও আর্থিক সহায়তা পাবেন। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দৃষ্ঠি প্রতিবন্ধী কল্যাণ সোসাইটির চেয়ারম্যান এম এম মোশাররফ হোসেন জানান
আমরা সিলেট জেলার অবহেলিত প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ব্যবসা বানিজ্যের বিকাশ ঘটাতে এবং তাদের সাহায্যার্থে সিলেট জেলা সদরের শাহ-পরান (র): থানার অর্ন্তগত, সিলেট সেনানিবাসের সামনের পাবলিক মাঠে মাস ব্যাপি প্রতিবন্ধী শিল্প পণ্য মেলা আয়োজনের বিষয়ে বিধি মোতাবেক পাঁচ হাজার টাকার ট্রেজারি চালান সহ বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ের সচীব বরাবরে অনুমতির জন্য আবেদন করি। এর প্রেক্ষিতে বাণিজ্য মন্ত্রনালয় থেকে মেলা আয়োজনের অনুমতির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সিলেটের জেলা প্রশাসক বরাবর চিঠি প্রেরণ করা হয়। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে মেলার অনুমতি বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য এসএমপি কমিশনার ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর চিঠি প্রেরণ করা হয়। এসএমপি কমিশনার ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেলা আয়োজনের পক্ষে মতামত প্রদান করে জেলা প্রশাসকের নিকট চিঠি প্রেরণ করেন। এই মেলাটি সম্পূর্ণ বাংলাদেশ দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কল্যাণ সোসাইটির একটি আয়োজন। এম এ মঈন খান বাবলু মেলা বিষয়ে অভিজ্ঞ হওয়ায় তাকে শুধু মাত্র মেলা পরিচালনার বিষয়ে সহযোগিতা করার জন্য স্থানীয় সমন্বয়ক হিসেবে সোসাইটির পক্ষ থেকে নিয়োগ প্রদান করা হয়। কিন্তু আমরা অতি দুঃখের সাথে জানচ্ছি যে, অসহায় প্রতিবন্ধীদের এই মহৎ উদ্যোগের বিষয়ে বিভিন্ন মহলে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। এম এ মঈন খান বাবলু নাকি অন্ধকল্যান সমিতির নাম দিয়ে মেলার আয়োজন করেছেন যা মোটেই সত্যে নয়। বাংলাদেশ দৃষ্টি প্রতীবন্ধী কল্যান সোসাইটির পক্ষ থেকে সকলের নিকট উদাত্ব আহবান সকল ভেদাভেদ ভূলে গিয়ে দলমত নির্বিশেষে প্রতিবন্ধীদের কল্যানে আয়োজিত প্রতিবন্ধী শিল্প পণ্য মেলাটি সফল ও সার্থক করে তোলতে সকলের কাছে সদয় সহযোগিতা কামনা করছি।

Comments are closed.